বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০২:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের টের পেয়ে পেঁয়াজ ১৭০ থেকে নেমে এলে ১২০ টাকা কেজি জগন্নাথপুর উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে মতবিনিময়সভা অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপ: ছাত্রলীগের আরো পাঁচজন গ্রেফতার নবীজীর কাছে যে সকল বেশে হাজির হতেন জিবরাইল (আ.) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক লবনের গুজব জগন্নাথপুরের সর্বত্রজুড়ে,ক্রেতা সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ, চলছে মাইকিং জগন্নাথপুর বাজারে লবন নিয়ে গুজব জগন্নাথপুরে আমনের ফলনে কৃষক খুশি জগন্নাথপুরে দুই মেধাবী শিক্ষার্থীর সহায়তায় এগিয়ে এলেন লন্ডন প্রবাসী মোবারক আলী জগন্নাথপুরে ৬ দিন ধরে মাদ্রাসার নৈশ্য প্রহরী নিখোঁজ

প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক

ধর্মপাশা প্রতিনিধি::
  • Update Time : সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ১৯৮ Time View

সকাল ৯টায় বিদ্যালয়ে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও কোনো কোনো শিক্ষক প্রায়ই বিদ্যালয়ে পৌঁছান নির্ধারিত সময়ের কয়েক ঘন্টা পরে। দেরি করে বিদ্যালয়ে পৌঁছালেও দুপুরের পরেই আবার বিদায় নেন তারা। ফলে তড়িঘড়ি করে শেষ হয় পাঠদান কার্যক্রম। সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার সুখাইড় রাজাপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের রাজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ দুয়েকজন সহকারী শিক্ষক এমনটি করেন বলে অভিযোগ শিক্ষার্থীর অভিভাবক ও এলাকাবাসীর। গত রোববার দুপুর বারোটার দিকে ধর্মপাশা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হোসেন রোকন ওই বিদ্যালয় পরিদর্শনে গিয়ে প্রধান শিক্ষকসহ দুজন সহকারী শিক্ষকের অনুপস্থিতির সত্যতা পান। প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে গত শনিবার থেকে তিনি উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করছেন।
জানা যায়, এ বিদ্যালয়ে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ৩৭৫ জন শিক্ষার্থীর জন্য ৫ জন শিক্ষক কর্মরত আছেন। কিন্তু বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ দুয়েকজন সহকারী শিক্ষক প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন। ফাঁকিবাজ শিক্ষকেরা যে দিন বিদ্যালয়ে উপস্থিত হন সে দিনও দেরিতে বিদ্যালয়ে পৌঁছান এবং দুপুরের পরেই বিদ্যালয় থেকে বিদায় নেন। ফলে বিদ্যালয়ে উপস্থিত থাকা শিক্ষকদেরকে বহু কষ্টে পাঠদান করতে হয়। সরোজমিনে দেখা যায় ওইদিন দুপুর বারোটায় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে বিদ্যালয়ে পাওয়া যায়নি। সহকারী শিক্ষক মাসুমা আক্তার শাহীন ও মোছা. হোসনে আরা বেবি যথাসময়ে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়ে পাঠদান চালিয়ে গেলেও অন্য দুই সহকারী শিক্ষক কাউসার মিয়া ও ফারুক আহমেদকে বিদ্যালয়ে পাওয়া যায়নি। কাউসার মিয়া ও ফারুক সাড়ে বারোটার দিকে বিদ্যালয়ে পৌঁছান। শিক্ষকদের হাজিরা খাতায় দেখা যায় গত বুধবার প্রধান শিক্ষক চৌধুরী তৌহিদুন্নবী ও সহকারী শিক্ষক কাউসার মিয়া বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন। বৃহস্পতিবার প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক ফারুক আহমেদ বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন।
প্রধান শিক্ষক চৌধুরী তৌহিদুন্নবী মুঠোফোনে জানান, বুধবার উপজেলা সদরে শিক্ষকদের মাসিক সভা হওয়ার কথা থাকায় বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন। বৃহস্পতিবারে বিদ্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন কিন্তু ভুলে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেননি তিনি।
প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকার বিষয়টি সত্য নয় দাবি করে সহকারী শিক্ষক কাউসার মিয়া বলেন, ‘কর্মস্থলে থাকার জন্য বিছানাপত্র নিয়ে আসতে আজ (রোববার) কিছুটা দেরি হয়েছে।’
সহকারী শিক্ষক ফারুক আহমেদ জানান, ‘পারিবারিক কারণে বিদ্যালয়ে পৌঁছাতে দেরি হয়েছে। প্রায়ই অনুপস্থিত থাকার বিষয়টি সত্য নয়। তবে সহকারী শিক্ষক কাউসার মিয়া মাঝে মধ্যে বিদ্যালয়ে আসেন বলে জানান তিনি।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হোসেন রোকন বলেন, ‘বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের উপস্থিতি নিশ্চিতকরণ, শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া রোধ ও উপস্থিতি বৃদ্ধিসহ প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে বিদ্যালয়গুলো পরিদর্শন করছি। পরিদর্শনকালে কোনো সমস্যা পাওয়া গেলে তা দ্রুত সমাধানের জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমার এ চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’
অনুপস্থিত শিক্ষকদের ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন বলে জানালেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হাসিনা আক্তার পারভীন ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জিল্লুর রহমান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24