বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন

মৃত ঘোষণার পর নড়ে উঠল তরুণী

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ১৭ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে সোমবার দুজন ইন্টার্ন চিকিৎসকের কর্মে ক্ষোভ অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়েছে। জরুরি বিভাগে নেওয়া অচেতন কলেজছাত্রী রিনা আক্তারকে মৃত বলে ঘোষণা দেন এ দুজন চিকিৎসক। এ নিয়ে স্বজনদের মধ্যে শুরু হয় শোকের মাতম। অবশেষে দেখা যায় রিনার শ্বাস-প্রশ্বাস চলছে। অসুস্থ ছাত্রীকে চিকিৎসার জন্য পরে সিলেটে স্থানান্তর করা হয়েছে। সূত্র জানায়, বানিয়াচং উপজেলার জিটকা গ্রামের রিনা আক্তার একটি কলেজে দ্বাদশ শ্রেণিতে অধ্যয়নরত। সোমবার সকালে মাথাব্যথার একপর্যায়ে অচেতন হয়ে পড়লে হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায় স্বজনরা। জরুরি বিভাগে উপস্থিত দুজন ইন্টার্ন চিকিৎসক রোগীর পালস পরীক্ষা করে রিনাকে মৃত ঘোষণা করেন। ডাক্তারদের কথা শুনে কান্নায় ভেঙে পড়ে স্বজনরা। খবর শুনে রিনার ভাই সাজু মিয়া বাড়ি থেকে হাসপাতালে ছুটে যান। তিনি হাত দিয়ে বোনের শ্বাস-প্রশ্বাস অনুভব করতে পারেন। তখন চিৎকার শুরু করলে ছুটে আসেন জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. মিঠুন রায়। তিনি রোগীকে পরীক্ষা করে স্যালাইনসহ ওষুধ দেন। হাসপাতালে ভর্তির পর রিনা আক্তারকে গতকাল বিকেলে সিলেটে স্থানান্তর করা হয়েছে। বাবা ফজর উদ্দিন বলেন, ‘ডাক্তারকে না জানিয়ে ট্রেনিং করতে আসা দুজন শিক্ষার্থীরা আমার মেয়েকে মৃত বলেছিল। এ ধরনের ঘোষণা ঠিক হয়নি। তাঁদের কাছে দায়িত্বশীল আচরণ প্রত্যাশা করি।’

ডা. মিঠুন রায় বলেন, ‘যেসব শিক্ষার্থী ইন্টার্ন করতে আসেন তাঁরা অনেক সময় ডাক্তারকে খবর দেওয়ার আগে নিজেরা রোগীর পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন। কলেজছাত্রীর চিকিৎসার ক্ষেত্রে এক ধরনের ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে।’

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24