সুনামগঞ্জে নির্বাচনের শেষ মুহুর্তে হুমকি ধামকি’র পাল্টাপাল্টির অভিযোগ

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

শেষ মুহূর্তে প্রভাব কাটানো, অপপ্রচার ও প্রতিপক্ষের প্রার্থীর এজেন্ট কর্মী-সমর্থকদের হুমকি ধামকিসহ, অতি দায়িত্বশীলদের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলেছেন কোন কোন চেয়ারম্যান প্রার্থী। সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি আওয়ামী লীগ নেতা মনিষ কান্তি দে মিন্টু শুক্রবার দুপুরে সাংবাদিক সম্মেলন করে অভিযোগ করেছেন, ‘তাঁর বিজয় নিশ্চিত দেখে, অন্য প্রার্থী খায়রুল হুদা চপল ও তাঁর সমর্থকরা কর্মীদের হুমকি-ধামকি দিচ্ছেন। কেউ যাতে তাঁর প্রতীক ঘোড়ার এজেন্ট না হয়, সেই জন্য হুমকি দেওয়া হচ্ছে।’
সংবাদ সম্মেলনে মিন্টু অভিযোগ করে আরও বলেন, খায়রুল হুদা চপলের পক্ষে নির্বাচনী এলাকায় আচরণবিধি লঙ্ঘন করে স্থানীয় সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্ প্রচারণা চালাচ্ছেন কিন্তু সেটি বন্ধে কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না। এ কারণে ভোটাদের মধ্যে নির্বাচন নিয়ে নেতিবাচক মনোভাব সৃষ্টি হচ্ছে।
নৌকা প্রতীকের প্রার্থী খায়রুল হুদা চপল’এর বড় ভাই জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট এখনো বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে অনুদান ঘোষণা করছেন। তাঁদের কর্মীরা এলাকায় এলাকায় গিয়ে বলছে, ভোট না দিলেও ব্যালট বাক্সে তাঁরা নিজেরাই ভোট ঢুকাবে। নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাউকে হুমকি ধামকি, কাউকে কাউকে নানা প্রলোভন দেখানো হচ্ছে। পুরো নির্বাচনী পরিবেশকে ভীতিকর করে তোলার অপচেষ্টা করা হচ্ছে বলে দাবি করেন মিন্টু। নিজেকে আওয়ামী লীগের নিবেদিত কর্মী দাবি করে এই পরিস্থিতিতে অবাধ, সুষ্ঠু ও আইনানুগ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য তিনি জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সহযোগিতা কামনা করেছেন। এই বিষয়ে দলীয় সভানেত্রী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর গোলাম সাবেরীন সাবু, জেলা স্বেচ্ছসেবক লীগের সভাপতি সুয়েব চৌধুরীসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং মুক্তিযোদ্ধারা উপস্থিত ছিলেন।
মনিষ কান্তি দে মিন্টু’র অভিযোগ বিষয়ে কথা বললে, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট বলেন,‘নির্বাচনী সভায় আমি কোন অনুদান দিচ্ছি না। অফিসে কেউ আসলে, তাকে অনুদান দেওয়া হচ্ছে। অনুদান দেবার জন্যই সরকার বরাদ্দ দেয়।’
স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা জাপার আহ্বায়ক পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্ বলেন, ‘আমি সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ভোটার। আমি নৌকার পক্ষে থাকবো এটিই স্বাভাবিক। নির্বাচন কমিশন থেকেও আমাকে এলাকা ছাড়ার কোন নির্দেশ দেওয়া হয়নি।’
একইভাবে শাল্লা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অবনী মোহন দাস স্থানীয় সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তার বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালানোর অভিযোগ তুলেছেন।
জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীম স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণার অভিযোগ করেছেন। অবশ্য. এই উপজেলার আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা ইউসুফ আল আজাদও রেজাউল করিম শামীমের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার ছড়ানোর অভিযোগ তুলেছেন। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার নির্বাচনী বিভিন্ন প্রচার সভায়ও ইউসুফ আল আজাদ রেজাউল করিম শামীমের সাম্প্রদায়িক বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন।
রেজাউল করিম শামীম সাম্প্রদায়িক বক্তব্য দেবার অভিযোগ মিথ্যা বানোয়াট উল্লেখ করে বলেন,‘স্থানীয় সংসদ সদস্য আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালাচ্ছেন। সংশ্লিষ্টদের এই বিষয়ে অভিযোগ জানিয়েছি আমি।’ ইউসুফ আল আজাদের সমর্থকরা তাঁর কর্মী সমর্থকদের হুমকি-ধামকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।
সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন,‘আমি কোন প্রচারণায় অংশ নিচ্ছি না, আমি আমার সুনামগঞ্জের বাড়িতে আছি।’
সংসদ সদস্য ড. জয়াসেন গুপ্তা বলেন,‘আমি কোন প্রচারণায় অংশ নেইনি। এরপরও নির্বাচন কমিশনের চিঠি পেয়ে নির্বাচনী এলাকা ত্যাগ করছি।’
জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম বলেন,‘সুনামগঞ্জ সদর আসনের সংসদ সদস্য আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালাচ্ছেন এমন অভিযোগ কেউ জানায়নি। সুনামগঞ্জ-১ ও ২ আসনের সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে জামালগঞ্জ ও শাল্লার দুজন প্রার্থী অভিযোগ করেছিলেন। সংসদ সদস্যগণকে নির্বাচনী কাজে সহায়তা করার জন্য এলাকা ছাড়তে অনুরোধ করে নির্বাচন কমিশন থেকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। সদর আসনের সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্ও নির্বাচনী এলাকায় থেকে কোন প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালালে, আমরা তাঁকে এলাকা ছাড়ার অনুরোধ জানাবো।’
প্রসঙ্গত. আগামী রোববার সুনামগঞ্জের ১০ উপজেলায় নির্বাচন। সব মিলিয়ে ৩১ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরে প্রবাসিদের সঙ্গে আইডিয়াল ভিলেজ ফোরামের মতবিনিময় সভা

» নিউজিল্যান্ডের সংসদে পবিত্র আল কোরআন তিলাওয়াত!

» প্রাথমিক শিক্ষক পদে এপ্রিলে পরীক্ষা

» বিশ্বনাথে দুই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ৯ জনের জামাত বাজেয়াপ্ত

» স্যান্ডেলের ভেতর ১০ হাজার ডলার!

» আবারও নিরাপদ সড়ক’র দাবীতে আন্দোলনে নামছে শিক্ষার্থীরা

» গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি- রডের পরিবর্তে বাঁশ দেবেন না

» জগন্নাথপুরে গাঁজাসহ গ্রেফতার-১

» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

সুনামগঞ্জে নির্বাচনের শেষ মুহুর্তে হুমকি ধামকি’র পাল্টাপাল্টির অভিযোগ

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

শেষ মুহূর্তে প্রভাব কাটানো, অপপ্রচার ও প্রতিপক্ষের প্রার্থীর এজেন্ট কর্মী-সমর্থকদের হুমকি ধামকিসহ, অতি দায়িত্বশীলদের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলেছেন কোন কোন চেয়ারম্যান প্রার্থী। সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি আওয়ামী লীগ নেতা মনিষ কান্তি দে মিন্টু শুক্রবার দুপুরে সাংবাদিক সম্মেলন করে অভিযোগ করেছেন, ‘তাঁর বিজয় নিশ্চিত দেখে, অন্য প্রার্থী খায়রুল হুদা চপল ও তাঁর সমর্থকরা কর্মীদের হুমকি-ধামকি দিচ্ছেন। কেউ যাতে তাঁর প্রতীক ঘোড়ার এজেন্ট না হয়, সেই জন্য হুমকি দেওয়া হচ্ছে।’
সংবাদ সম্মেলনে মিন্টু অভিযোগ করে আরও বলেন, খায়রুল হুদা চপলের পক্ষে নির্বাচনী এলাকায় আচরণবিধি লঙ্ঘন করে স্থানীয় সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্ প্রচারণা চালাচ্ছেন কিন্তু সেটি বন্ধে কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না। এ কারণে ভোটাদের মধ্যে নির্বাচন নিয়ে নেতিবাচক মনোভাব সৃষ্টি হচ্ছে।
নৌকা প্রতীকের প্রার্থী খায়রুল হুদা চপল’এর বড় ভাই জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট এখনো বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে অনুদান ঘোষণা করছেন। তাঁদের কর্মীরা এলাকায় এলাকায় গিয়ে বলছে, ভোট না দিলেও ব্যালট বাক্সে তাঁরা নিজেরাই ভোট ঢুকাবে। নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাউকে হুমকি ধামকি, কাউকে কাউকে নানা প্রলোভন দেখানো হচ্ছে। পুরো নির্বাচনী পরিবেশকে ভীতিকর করে তোলার অপচেষ্টা করা হচ্ছে বলে দাবি করেন মিন্টু। নিজেকে আওয়ামী লীগের নিবেদিত কর্মী দাবি করে এই পরিস্থিতিতে অবাধ, সুষ্ঠু ও আইনানুগ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য তিনি জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সহযোগিতা কামনা করেছেন। এই বিষয়ে দলীয় সভানেত্রী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর গোলাম সাবেরীন সাবু, জেলা স্বেচ্ছসেবক লীগের সভাপতি সুয়েব চৌধুরীসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং মুক্তিযোদ্ধারা উপস্থিত ছিলেন।
মনিষ কান্তি দে মিন্টু’র অভিযোগ বিষয়ে কথা বললে, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট বলেন,‘নির্বাচনী সভায় আমি কোন অনুদান দিচ্ছি না। অফিসে কেউ আসলে, তাকে অনুদান দেওয়া হচ্ছে। অনুদান দেবার জন্যই সরকার বরাদ্দ দেয়।’
স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা জাপার আহ্বায়ক পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্ বলেন, ‘আমি সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ভোটার। আমি নৌকার পক্ষে থাকবো এটিই স্বাভাবিক। নির্বাচন কমিশন থেকেও আমাকে এলাকা ছাড়ার কোন নির্দেশ দেওয়া হয়নি।’
একইভাবে শাল্লা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অবনী মোহন দাস স্থানীয় সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তার বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালানোর অভিযোগ তুলেছেন।
জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীম স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণার অভিযোগ করেছেন। অবশ্য. এই উপজেলার আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা ইউসুফ আল আজাদও রেজাউল করিম শামীমের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার ছড়ানোর অভিযোগ তুলেছেন। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার নির্বাচনী বিভিন্ন প্রচার সভায়ও ইউসুফ আল আজাদ রেজাউল করিম শামীমের সাম্প্রদায়িক বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন।
রেজাউল করিম শামীম সাম্প্রদায়িক বক্তব্য দেবার অভিযোগ মিথ্যা বানোয়াট উল্লেখ করে বলেন,‘স্থানীয় সংসদ সদস্য আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালাচ্ছেন। সংশ্লিষ্টদের এই বিষয়ে অভিযোগ জানিয়েছি আমি।’ ইউসুফ আল আজাদের সমর্থকরা তাঁর কর্মী সমর্থকদের হুমকি-ধামকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।
সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন,‘আমি কোন প্রচারণায় অংশ নিচ্ছি না, আমি আমার সুনামগঞ্জের বাড়িতে আছি।’
সংসদ সদস্য ড. জয়াসেন গুপ্তা বলেন,‘আমি কোন প্রচারণায় অংশ নেইনি। এরপরও নির্বাচন কমিশনের চিঠি পেয়ে নির্বাচনী এলাকা ত্যাগ করছি।’
জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম বলেন,‘সুনামগঞ্জ সদর আসনের সংসদ সদস্য আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালাচ্ছেন এমন অভিযোগ কেউ জানায়নি। সুনামগঞ্জ-১ ও ২ আসনের সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে জামালগঞ্জ ও শাল্লার দুজন প্রার্থী অভিযোগ করেছিলেন। সংসদ সদস্যগণকে নির্বাচনী কাজে সহায়তা করার জন্য এলাকা ছাড়তে অনুরোধ করে নির্বাচন কমিশন থেকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। সদর আসনের সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্ও নির্বাচনী এলাকায় থেকে কোন প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালালে, আমরা তাঁকে এলাকা ছাড়ার অনুরোধ জানাবো।’
প্রসঙ্গত. আগামী রোববার সুনামগঞ্জের ১০ উপজেলায় নির্বাচন। সব মিলিয়ে ৩১ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।