1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০৪:২২ অপরাহ্ন

তাহিরপুর সীমান্তে বিজিবি ও এলাকাবাসীর সংঘর্ষ

  • Update Time : শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২০
  • ৮৫ Time View

তাহিরপুর প্রতিনিধি
বিজিবি’র মারধরে এক শিশু’র মৃত্যু ঘটেছে, এমন মিথ্যা গুজবে বুধবার রাতে তাহিরপুর উপজেলার সীমান্তে বিজিবি ও স্থানীয় এলাকাবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে এক শিশু ও বিজিবি’র দুই সদস্য আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বিজিবি ১১ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে। বুধবার রাত সাড়ে ৭ টার দিকে সীমান্তের শাহিদাবাদ বর্ডার হাট সংলগ্ন (বরই বাগান) এলাকায় এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় উত্তেজনা থাকায় বৃহস্পতিবার বিকালে জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনের কর্মকর্তা ও বিজিবি কর্মকর্তাদের বৈঠক হয়। বৈঠকে উভয়পক্ষ শান্তিপূর্ণভাবে ঘটনার নিস্পত্তি ঘটে। বলা হয় এই নিয়ে কোন পক্ষই বাড়তি কিছু করতে পারবেন না।
প্রত্যক্ষদর্শী ও বিজিবি সূত্রে জানা যায়, বুধবার সন্ধ্যা ৬ টার দিকে শাহিদাবাদ বর্ডার হাট সংলগ্ন এলাকা দিয়ে বেশ কয়েকজন শ্রমিক কয়লা কুড়িয়ে ফিরছিল। এসময় বিজিবির সাদা পোশাকধারী গোয়েন্দা ল্যান্স নায়েক নাঈম ইসলাম তাদের পথরোধ করেন। শিশুরা এসময় কুড়ানো কয়লা ফেলে দৌঁড়ে পালিয়ে
যায়। দৌড়ে যাওয়ার সময় উত্তর বাদাঘাট ইউনিয়য়ের মুকসেদপুর গ্রামের বাচ্চু মিয়ার ছেলে সুমন (৮) হোঁচট খেয়ে হয়ে মাটিতে পড়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে স্থানীয় লোকজন শিশুটিকে উদ্ধার করে মাথায় পানি ঢেলে জ্ঞান ফেরানোর চেষ্টা করেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই এলাকায় গুজব ছড়ায় বিজিবির আঘাতে শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এই গুজবে কিছু মানুষ উত্তেজিত হয়ে বিজিবির উপর পাথর নিক্ষেপ করতে থাকে। পরে টহলরত বিজিবির অন্য সদস্যরাও এগিয়ে আসে। শুরু হয় ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়া। কিছু দোকান একপর্যায়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ১১ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে বিজিবি। ঘটনার সময় ইটপাটকেলের আঘাতে আহত ল্যান্স নায়েক নাঈম ইসলাম সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং আহত শিশু সুমনকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
ঘটনার খবর পেয়ে রাতেই বিজিবি ২৮ ব্যাটেলিয়ানের উপ পরিচালক মাহবুব আলম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। এলাকায় অতিরিক্ত বিজিবিও মোতায়েন করা হয়।
তাহিরপুর থানা ওসি মোহাম্মদ আব্দুল লতিফ তরফদার’র নেতৃত্বে বাদাঘাট ফাঁড়ির ইনচার্জ মাহমুদুল হাসানসহ একদল পুলিশ রাত ১০ টায় ঘটনাস্থলে পৌঁছান। পুলিশ ও বিজিবি’র চেষ্টায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ হয়।
বৃহস্পতিবার বিকালে ২৮ বিজিবির উপ-অধিনায়ক মেজর রাসেল, তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ, তাহিরপুর থানার ওসি আব্দুল লতিফ তরফদার, বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন, সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা নিজাম উদ্দিন, তাহিরপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আলম সাব্বিরসহ স্থানীয় গণমান্যদের এ ঘটনার শান্তিপূর্ণ সমাধান হয়।
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল বলেন, সকলের উপস্থিতি ঘটনার শান্তিপূর্ণ সমাধান হয়েছে।
বিজিবি’র ২৮ গার্ড ব্যাটেলিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল মাকসুদুল আলম স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের জানিয়েছেন, ঘটনাটি যেভাবে প্রচার হয়েছিল, আসলে তা হয় নি। সীমান্তের একেবারে সংলগ্ন যাদুকাটা নদীতে শ্রমিকদের ধাওয়া করলে শিশু সুমন হোঁচট খেয়ে অজ্ঞান হয়ে পড়ে। এ ঘটনায় স্থানীয়দের মধ্যে খবর ছড়িয়ে পড়ে শিশুটি মারা গেছে। পরে স্থানীয় লোকজন বিজিবির উপর হামলা চালায়। এসময় বিজিবি আত্মরক্ষার্থে ফাঁকা গুলি ছুড়ে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com