বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন বাড়ছে জগন্নাথপুরে জুয়া খেলার দায়ে আ.লীগ নেতাসহ চারজনের কারাদণ্ড এরালিয়া বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৭ শিক্ষার্থী ফরম পূরন থেকে বঞ্চিত নতুন সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে জগন্নাথপুরে পরিবহন ধর্মঘট পালন, জনভোগান্তি জগন্নাথপুরে গানে গানে মাতিয়ে গেলেন ‘ক্লোজআপ ওয়ান’র তারকা শিল্পী সালমা আইন শৃঙ্খলা সভা: জগন্নাথপুরে মাদক বিরোধী অভিযান জোরদারের আহবান জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার দুই ট্রেনের মুখামুখি সংঘর্ষে নিহত ১৬ রাধারমন দত্ত এ দেশের লোক সংস্কৃতির ভান্ডার কে সমৃদ্ধ করেছেন: জেলা প্রশাসক ‘আওয়ামী লীগে দুঃসময়ের কর্মী চাই, বসন্তের কোকিল না’

জেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে জগন্নাথপুরের জনপ্রতিনিধি ও আ.লীগ নেতারা বিভক্ত

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৬০ Time View

স্টাফ রিপোর্টার-
সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুর উপজেলার জনপ্রতিনিধি ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আবারও বিভক্তিতে জড়িয়ে পড়েছেন।
গত দুই দিন ধরে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুটের সমর্থনে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের একাংশ আজিজুস সামাদ ডন অনুসারী নেতাকর্মীরা প্রকাশ্যে মাঠে নেমেছেন। তাঁরা আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমনের বিরোধীতা করে চেয়ারম্যান প্রার্থী নুরুল হুদা মুকুটের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। যদিও আওয়ামী লীগের মূল অংশ স্থানীয়ভাবে সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি সিদ্দিক আহমদ অনুসারিরা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আকমল হোসেন সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু ও সাংগঠনিক সম্পাদক মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা প্রকাশ্যে ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমনের পক্ষে চশমা প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করছেন। জগন্নাথপুরের সন্তান হিসেবে ব্যারিস্টার ইমন বাড়তি সুবিধায় থাকলেও রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের কারণে একপক্ষ তাঁর বিপক্ষে অবস্থান নেয়ায় এলাকার জনপ্রতিনিধিরাও বিভক্ত হয়ে পড়েছেন।
স্থানীয়রা জানান, বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগে প্রকাশ্যে দু’টি ধারা বিভক্ত হয়ে পড়ে। এক ধারায় স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি সিদ্দিক আহমদ রয়েছেন।
অপর ধারায় রয়েছেন প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদ তনয় আজিজুস সামাদ ডন। স্থানীয়ভাবে বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আজিজুস সামাদ ডন ফুটবল প্রতীকে নির্বাচন করে নৌকার বিরোধীতাকারীরা মূল ধারা থেকে বিভক্ত হয়ে আলাদা বলয়ে কাজ করছে। যার প্রভাব পড়েছে গত পৌর ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে। দুই ধারার লোকজনই পছন্দের প্রার্থী না থাকায় গোপনে নৌকার বিরোধীতা করেন। আটটি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার নিয়ে গঠিত এ উপজেলার মধ্যে জগন্নাথপুর পৌরসভা, কলকলিয়া ইউনিয়নে আজিজুস সামাদ ডন অনুসারী প্রার্থী বিজয়ী হন। তন্মেধ্যে পৌরসভায় আব্দুল মনাফ নৌকা প্রতীকে বিজয়ী হন। কলকলিয়া ইউনিয়নে আব্দুল হাশিম নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে জয়ী হন। অপর ইউনিয়নগুলোর মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে চিলাউড়া-হলদিপুর, আশারকান্দি ও রানীগঞ্জ ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীরা বিজয়ী হয়। সৈয়দপুর শাহারপাড়া ও পাইলগাঁও ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহীরা বিজয়ী হলেও এ দুজন আওয়ামী লীগের মূলধারার সাথে রয়েছেন। মীরপুর ইউনিয়নে আইনি জটিলতায় নির্বাচন না হওয়ায় ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দায়িত্ব পালন করছেন তিনিও আওয়ামী লীগের মুল ধারায় রয়েছেন। গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে জয়লাভ কারী আশারকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ আবু ঈমানী প্রকাশ্যে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নুরুল হুদা মুকুটের পক্ষে মাঠে রয়েছেন।
অপরদিকে রানীগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম রানা জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমনের পক্ষে রয়েছেন। এছাড়াও পাটলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিরাজুল হক, চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া রয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে। এঅবস্থায় জগন্নাথপুর উপজেলার আটটি ইউনিয়ন ও পৌরসভার জনপ্রতিনিধিরা দু’ধারায় বিভক্ত হয়ে পড়েছেন।
জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল মনাফ বলেন, ‘যেহেতু এই নির্বাচনে দলীয় প্রতীক নেই। দুই জনই আওয়ামী লীগ পরিবারের প্রার্থী। তাই আমরা আব্দুস সামাদ আজাদের রাজনৈতিক দর্শনের সৈনিক হিসেবে নুরুল হুদা মুকুটের পক্ষে রয়েছি।’
তিনি বলেন, ‘অপর প্রার্থী জগন্নাথপুরের সন্তান ও আওয়ামী লীগের প্রার্থী হলেও জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের গুটি কয়েকজন নেতা আমাদের সাথে কোন আলোচনা না করেই মনগড়া তাকে নিয়ে দলীয় কার্যক্রম চালাচ্ছেন। এসব কর্মসূচিতে আমাদেরকে ডাকা হয় না। তাই আমরা আমাদের মতো কার্যক্রম চালাচ্ছি।
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের আরেক সহ-সভাপতি পাটলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিরাজুল হক বলেন, ‘আওয়ামীলীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ব্যারিস্টার এনামুল কবির ইমন জগন্নাথপুরের সন্তান। এছাড়াও তিনি একজন যোগ্য প্রার্থী হিসেবে আমরা তাঁর সাথে রয়েছি। তিনি বলেন, ‘জগন্নাথপুরের সন্তান হিসেবে দলমত নির্বিশেষে সকল জনপ্রতিনিধিরা তাকে সমর্থন করবেন বলে আশা করছি।’
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা মনোনীত প্রার্থী হিসেবে দলের দায়িত্বশীল হিসেবে আমরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের সমর্থনে মাঠে কাজ করছি। জগন্নাথপুর আওয়ামী লীগে কোন বিভক্তি নেই। আশা করি সবাই দলের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24