সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:২৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
শালুকের ঠোঁটে ফুটে বিজয় || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুর উপজেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার সম্পন্ন, ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কৃত জগন্নাথপুরে প্রবাসি সংগঠনের উদ্যেগে দরিদ্র মানুষের মধ‌্যে ত্রাণ বিতরণ দিরাইয়ে সংঘর্ষ, গুলিতে নিহত ১, গুলিবিদ্ধসহ আহত ২০ ফ্রান্স আওয়ামী লীগের উদ্যাগে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালিত ভারতীয় মুসলিমদের পাশে থাকার আহবান ভারত থেকে ৯ পণ্য আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার বাংলাদেশের সমাজ মেরামতের দায়িত্ব আলেমদের জগন্নাথপুরে ব্রিটিশ বাংলা এডুকেশন ট্রাস্টের রিসোর্স সেন্টারের কাজ পরিদর্শনে ট্রাস্টের প্রতিনিধিদল

বিরোধকৃত জলমহাল নিয়ে উত্তেজনা হাওরাঞ্চলজুড়ে

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ৯৪ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
জলমহাল নিয়ে প্রতিবছরের মতো এবারও উত্তেজনা রয়েছে হাওরাঞ্চলে। মামলা মোকদ্দমায় জড়িত জলমহালগুলো নিয়েই উত্তেজনা বেশি। অইজারাকৃত জলমহালের দখল নিয়েও দ্বন্দ্ব রয়েছে হাওরাঞ্চল জুড়ে।
গত বছর ১৭ জানুয়ারি দিরাই উপজেলার কুলঞ্জ ইউনিয়নের বৃহৎ জলমহাল জারলিয়ার দখল নিয়ে বন্দুকযুদ্ধে ৩ জন নিহত হয়েছিল। এই জলমহাল নিয়ে উত্তেজনা এখনো কাটে নি। দক্ষিণ নাগেরগাঁও মৎস্যজীবী সমিতির নামে এই জলমহাল ইজারা হলেও দিরাই পৌরসভার মেয়র মোশারফ মিয়া ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা একরার হোসেনের লোকজনের মধ্যে এখনো উত্তেজনা রয়েছে। দুই পক্ষই এই জলমহালের দখল নিতে মরিয়া।
দিরাই উপজেলার শয়তানখালি (২) জলমহাল ইজারা হয় নি। এই জলমহালে স্থানীয় সরকার দলীয় প্রভাবশালীরা টুকেন বাণিজ্য করছেন বলে ইতিপূর্বে অভিযোগ ওঠেছে। এই উপজেলার শয়তানখালি (৪) জলমহালটি দখল নিতে মরিয়া সরকারদলীয় দুটি পক্ষ। দুই পক্ষই দুটি মৎস্যজীবী সমিতির নামে জলমহাল বন্দোবস্ত নেবার চেষ্টায় রয়েছে। এ জলমহাল নিয়ে আদালতে মামলাও রয়েছে। এই উপজেলার জোড়বিলা জলমহাল নিয়ে সুজানগর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি, সরালিতুপা মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির দ্বন্দ্ব রয়েছে। এই জলমহাল নিয়ে ভূমি আপিল বোর্ডে মামলা রয়েছে। এখানেও দুই পক্ষে সরকার দলীয়রা যুক্ত রয়েছেন।
এই উপজেলার কুলঞ্জ ইউনিয়নের টাংনী জলমহাল নিয়ে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা ডাল্টন চৌধুরী এবং কুলঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমানের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা রয়েছে। ধিতপুর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি এই জলমহাল বন্দোবস্ত পেলেও জলমহালের একটি অংশ মুজিবুর রহমানের লোকজনের দখলে রয়েছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।
দিরাই উপজেলার হালুয়া, কাউট্টা, কচুয়া জলমহাল নিয়ে ইজারাদার পক্ষ চাঁনপুর মৎস্যজীবী সমিতির সঙ্গে স্থানীয় লোকজনের দ্বন্দ্ব রয়েছে। স্থানীয় লোকজনের দাবি ছিল এই জলমহালটি বন্দোবস্ত না দেবার। শাল্লা উপজেলার ছায়ার হাওরের মাউতি বিলের ইজারাদার রঘুনাথপুর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সঙ্গে স্থানীয়দের দ্বন্দ্ব রয়েছে। স্থানীয়দের দাবি এই জলমহালের ইজারাদার তাঁদের নির্দিষ্ট সীমানার বাইরেও শাসন করছে। এই নিয়ে উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক তকবির হোসেনের লোকজনের সঙ্গে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিবের লোকজনের ইতিপূর্বে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়েছে।
দিরাই ও শাল্লার সীমান্তবর্তী হাতনি গ্রুপ ফিসারী নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা রয়েছে। এই জলমহাল পাড়ের বাসিন্দাদের দাবি জলমহালের বাঘরাধরা খাল এক সময় ইজারাদার শাসন করতো না, গ্রামের উন্নয়নের জন্য গ্রামবাসীকে দিয়ে দেয়া হতো, এখনকার ইজারাদাররা সেটিও শাসন করতে চাচ্ছে, কিন্তু গ্রামবাসী বাঘরাধরা দখলেই রেখেছে।
শাল্লা ও আজমিরিগঞ্জের সীমান্তবর্তী চ-িডোয়ার জলমহাল দখল নিয়ে গত বছর এই মৌসুমে দুই পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছিলেন। এবারও আজমিরিগঞ্জের একপক্ষের সঙ্গে শাল্লার আরেক পক্ষের দ্বন্দ্ব রয়েছে।
জামালগঞ্জের ছাতিধরা জলমহাল এখনো ইজারা হয় নি। এই জলমহাল নিয়ে দুই পক্ষের বিরোধ রয়েছে। জামালগঞ্জের করালজান গ্রুপ জলমহালের ৬৫ লাখ টাকা রাজস্ব আদায়ের জন্য ৩১ ডিসেম্বর নির্দেশ দেওয়া হলেও এখনো (১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত) টাকা আদায় হয়নি।
মধ্যনগরের বাদে দিঘর জলমহাল ও বইয়া খাউড়ি জলমহাল নিয়ে স্থানীয়দের সঙ্গে ইজারাদারের দ্বন্দ্ব রয়েছে।
দোয়ারাবজারের মরা সুরমা নদী ইজারা না নিয়েই দখল করে রেখেছে একটি পক্ষ। এই নিয়ে দখলদারদের সঙ্গে নদীর পাড়ের গ্রামবাসীর বিরোধ রয়েছে।
জেলা প্রশাসকের রাজস্ব শাখার দায়িত্বশীলরা জানিয়েছেন, জেলায় ২০ একরের উপরের ৪২০ টি জলমহালের মধ্যে ৪৫ টি এখনো ইজারা হয় নি। ২০ একরের নীচের ৫২৫ টি জলমহাল রয়েছে। এগুলো ইজারা হয় উপজেলা পরিষদ থেকে।
জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম বললেন,‘ইজারা প্রক্রিয়াধীন জলমহালগুলোর যেগুলো ইজারা হয় নি, সেগুলোতে খাস কালেকশন করা হবে। উন্নয়ন স্কীমের আওতায় বা অন্যভাবে যেগুলো বন্দোবস্ত দেওয়া হয়েছে, সেগুলোর খাজনা দেবার জন্য বলা হয়েছে, খাজনা না দিলে দখল বুঝিয়ে দেওয়া হবে না, যেগুলো নিয়ে স্থিতাবস্তা, সেগুলোর ক্ষেত্রে আদালতের নিষেধাজ্ঞা প্রতিপালন করা হবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24