বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ১১:৪০ অপরাহ্ন

প্রধানমন্ত্রীর কাছে হাওরের স্থায়ী সমাধান চান হাওরবাসী

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৯ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৬১ Time View

আবু হানিফ চৌধুরী, দিরাই
অকাল বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হাওর এলাকার কৃষকের চোখে এখন শুধুই কান্না। দুর্নীতিবাজ পাউবো কর্মকর্তা আর ঠিকাদারদের দুর্নীতির কারণে চোখের সামনেই একে এক তলিয়ে গেছে ফসল। অসহায়ের মতো তাকিয়ে দেখা ছাড়া কিছুই করার ছিলো না কৃষকদের। হাওরের ফসলহানির পর খরার উপর মরার ঘা এর মতো হাওরের মাছ ও খামারের হাঁস মরে গেল। দুঃখ-দূর্দশা যেন পিছু ছাড়ছে না হাওরবাসীর। এরকম অবস্থায় হাওরের কান্না শুনতে হাওরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগামীকাল রবিবার হাওর পরিদর্শন করে শাল্লা উপজেলা সদরের সাহিদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করবেন তিনি।
এদিকে প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে বুকভরা আশা নিয়ে শাল্লার সাহিদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে উপস্থিত হবেন হাওর পাড়ের কয়েক লক্ষ মানুষ। তাদের একটিই কথা থাকবে, শুধু ত্রাণ নয়, ঘুরে দাঁড়াবার
সুযোগ করে দিতে হবে। আর প্রতিশ্রুতি নয়, হাওরের সমস্যার স্থায়ী সমাধান চাই আমরা।
দিরাই ডিগ্রী কলেজের সাবেক প্রিন্সিপাল মিহির রঞ্জন দাস বলেন, একটি এলাকায় যেকোন কারণেই হোক সরকার প্রধানের আগমন বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। মানুষের মধ্যে আশা আকাংখার সৃষ্টি হয়। আমরা আশাবাদী শুধু ত্রাণ সামগ্রীই নয় দিরাই শাল্লাবাসী অনেক কিছুই পাবে।
শাল্লা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুস শহিদ বলেন, সারা বছরব্যাপী হাওর এলাকায় খাদ্য বান্ধব বিশেষ কর্মসুচি চালু রাখা পয়োজন, অনেক মানুষ কষ্ট করছে কিন্তু লাইনে দাঁড়িয়ে চাল ক্রয় করতে পারছে না। তাদেরকে চাল ক্রয়ের ব্যবস্থা করে দিতে হবে।
টাংনির হাওর পাড়ের কৃষক আনোয়ার হোসেন বলেন, সব হারিয়ে আমরা নিঃস্ব, নিজেই খাবো কি, আর হাঁস, মুরগি গরু ছাগলকে খাওয়ামুইবা কি। প্রধানমন্ত্রীর আগমনের খবরে আমাদের মাঝে আশার আলো দেখা দিয়েছে। দেখা যাক তিনি আমাদের জন্য কি সুখবর নিয়ে আসছেন।
বরাম হাওর পাড়ের বাসিন্দা অনুকূল চন্দ্র দাস বলেন, অকাল বন্যা অথবা জলাবদ্ধতায় প্রতিবছরই হাওর আক্রান্ত হয়, এভাবে চলতে থাকলে কৃষককূল ধ্বংস হয়ে যাবে। কৃষক না বাঁচলে দেশ বাঁচবে না, তাই কৃষকদের বাঁচাতে আর প্রতিশ্রুতি শুনতে চাই না, এবার স্থায়ী সমাধান চাই।
কালিয়াগুটা হাওর পাড়ের কৃষক জগদিশ দাস বলেন, পাউবো নামক (পানি ইন্নয়ন বোর্ড) দানব প্রতিষ্ঠান যেন এদেশে আর না থাকে।
জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যরিষ্টার এনামুল কবির ইমন বলেন, জননেত্রী জনগণের কথা শুনতে নিজেই আসছেন। এটি সুনামগঞ্জবাসীর জন্য গর্বের বিষয়। দলীয় সভানেত্রীর আগমনকে স্বার্থক ও সুন্দর করে তুলতে জেলা আওয়ামীলীগ বিভিন্ন প্রস্তুতি সভাসহ ব্যাপক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে।
জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মহিবুর রহমান মানিক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে সুনামগঞ্জবাসীর মাঝে প্রাণের উচ্ছাস সৃষ্টি হয়েছে। জননেত্রী এরই মধ্যে হাওরবাসীর জন্য বিভিন্ন কর্মসুচি গ্রহণ করেছেন। কৃষকের ফসল রক্ষায় সরকার স্থায়ী চিন্তা ভাবনা করছে। এরই মধ্যে প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রীর আগমনকে সফল ও স্বার্থক করে তুলতে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।
নব নির্বাচিত সাংসদ ড. জয়া সেনগুপ্তা বলেন, গণমানুষের নেত্রী, জনগণের কথা শুনতেই হাওর এলাকায় আসছেন, উনার আগমনে হাওর এলাকার দুঃখ দুর্দশা লাঘব হবে।
আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ভাটির জনপদের মানুষের দুঃখ কষ্ট দেখতে এবং ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করতে আসছেন এবং তিনি ঘোষণা করেছেন কোন মানুষই খাদ্যাভাবে কষ্ট পাবে না। দেশে যথেষ্ট পরিমাণ খাদ্যশস্য মজুদ রয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24